আগামী ২০ থেকে ৩০ নভেম্বর মালদ্বীপে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পমিজ কাপ ফুটবল (প্রেসিডেন্ট অব মালদ্বীপ ন্যাশনাল সকার)। এই টুর্নামেন্টে খেলার জন্য আমন্ত্রণ পেয়েছে বাংলাদেশ।

১৯৮৭ সাল থেকে শুরু হওয়া পমিজ কাপে এ পর‌্যন্ত ১৭টি আসর অনুষ্ঠিত হয়েছে। অতীতে কোন দেশই জাতীয় দল পাঠায়নি। ১৯৯৭ সালে থাইল্যান্ড অনুর্ধ্ব-১৯ দল আসরটিতে অংশ নিয়েছিল।

আগামী ২১-৩০ ডিসেম্বর ভারতের ক্যারালায় অনুষ্ঠিত হবে দক্ষিণ এশিয়ার বিশ্বকাপ খ্যাত সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশীপ। তার আগে মালদ্বীপে এমন প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া বাংলাদেশের জন্য সাফ ফুটবলের প্রস্তুতি স্বরুপই।

চারজাতি এটুর্নামেন্টে অংশ নেবে স্বাগতিক মালদ্বীপ, সিঙ্গাপুর, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ।এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেছেন, ‘মালদ্বীপ ফুটবল সংস্থা পমিজ কাপে অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ জানিয়েছে। কাল (রবিবার) জাতীয় দলের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। আলোচনার পরই পমিজ কাপে দল পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে’।

অন্যদিকে আসন্ন সাফ ফুটবল নিয়ে সাফ সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক হেলাল জানিয়েছেন, ‘ভারতীয় সুপার লিগ (আইএসএল) শেষেই অনুষ্ঠিত হবে সাফ চ্যাম্পিয়নশীপ। সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারশন ২১ থেকে ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যেই সাফ চ্যাম্পিয়নশীপ সম্পন্ন করতে চায়’।

ওদিকে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের আগে বাংলাদেশের সাথে একটি প্রীতি ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশে আসছে আফগানিস্তান জাতীয় ফুটবল দল। ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ৪জুন বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে।

তবে মিয়ানমার ও সিঙ্গাপুরের সাথে প্রীতি ম্যাচ খেলার কথা থাকলেও তা হযতো হচ্ছে না। কারণ দুই দেশই জানিয়েছে, ম্যাচ হতে হবে তাদের দেশে। কিন্তু বাফুফে সেখানে গিয়ে খেলতে রাজি নয়। তারপরও এ ব্যাপারে চূড়ান্ত কোন সিদ্ধান্ত এখনও নেয়নি বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন।