মাঠে তাকালে হঠাৎ মনে হবে বুঝি, ইতালি জাতীয় দল খেলছে কারও বিপক্ষে। ভালো করে তাকালে বোঝা যাবে, না- এটাতো বহুজাতিক একটি দল। যেখানে তেভেজ আছেন, আছেন ভিদাল, এভরা, আলভারো মোরাতা, পিরলো, বুফন কিংবা কিয়েল্লিনিরা। ঘোর কাটতে একটু সময়ই লাগার কথা। জার্সি যে পুরোপুরি ইতালি জাতীয় দলের মতই! আসলে নীল জার্সির মোড়কে বার্নাব্যুতে খেলতে এলো জুভেন্তাস এবং স্বাগতিকদের কাঁদিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে স্থান করে নিল বুফনরা।

জুভেন্তাসের মাঠে গিয়ে আগের ম্যাচে ২-১ গোলে হেরে এসেছিল রিয়াল। ফিরতি লেগে হিসাব ছিল ১-০ গোলে জিতলেও চলবে তাদের। তখন অ্যাওয়ে গোলে এগিয়ে থেকে ফাইনাল নিশ্চিত হবে তাদের। কিন্তু, জুভেন্তাসের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে ফেলল লজ ব্লাঙ্কোজরা। সুতরাং, দুই লেগ মিলিয়ে ৩-২ গোলে রিয়াল মাদ্রিদকে হারিয়ে ফাইনালে বার্সেলোনার প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে গেলো ইতালি সিরি-এ চ্যাম্পিয়নরা।

৬ জুন জার্মানির রাজধানী বার্লিনের অলিম্পিক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে বার্সেলোনা-জুভেন্তাস ফাইনাল। প্রত্যাশা ছিল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে চির কাংখিত এল ক্ল্যাসিকো। কিন্তু জুভদের কাছে রিয়ালের হারে আর সেটা হলো না। বায়ার্ন মিউনিখকে দুই লেগে ৫-৩ গোলে হারিয়ে আগেই ফাইনাল নিশ্চিত করে নিয়েছিল মেসি-নেইমারদের দল বার্সেলোনা।

সান্তিয়াগো বার্নাব্যু বলে রিয়াল সমর্থকরা আশায় ছিল, নিজেদের মাঠে তাদের দল টানা দ্বিতীয় এবং মোট ১১তম চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের জন্য ফাইনাল নিশ্চিত করে ফেলবে। কিন্তু জুভরা যে, ইতালিয়ান ক্লাব এবং তাদের যে বিখ্যাত ডিফেন্সিভ ঐতিহ্য রয়েছে, সেটা সম্ভবত ভুলে গিয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। তার চেয়ে বরং, ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোদের অসংখ্য সুযোগ নষ্ট করার মহড়াই দায়ী রিয়াল মাদ্রিদের এই হারের জন্য।

যদিও ২৩ মিনিটে পেনাল্টি থেকে প্রথম রিয়ালকে এগিয়ে দিয়েছিলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। কলম্বিয়ান হামেস রদ্রিগেজকে ডি বক্সের মধ্যে ফাউল করেন জিওর্জিও কিয়েল্লিনি। রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজালে শট নেন রোনালদো।

একটু পরই দারুন একটি সুযোগ মিস করেন রোনালদো। সার্জিও রামোস আর করিম বেনজেমা মিলে জুভদের একেবারে কাছে চলে এসেছিলেন। কিন্তু কাউন্টার অ্যাটাক থেকে আসা দারুন এই সুযোগটি মিস করে ফেলেন রোনালদো।

৫৭ মিনিটে রিয়ালকে গোলটি ফিরিয়ে দিলেন তাদেরই ঘরের ছেলে, সাবেক স্ট্রাইকার আলভারো মোরাতা। মাঝ মাঠ থেকে বল ডি বক্সে আসার পর পল পগবা হেড করে সেটি পাস দেন মোরাতার কাছে। বুক দিয়ে বলটি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে জোরালো শট করেন তিনি। ক্যাসিয়াস হাত লাগিয়েও বলটি ফেরাতে পারলেন না।

এর একটু পরই একটি দারুন সুযোগ মিস করেন ক্লদিও মৌরিচিসিও। রিয়ালের রক্ষণ চিরে তিনি বেরিয়ে গিয়েছিলেনও। কিন্তু গোলরক্ষক ক্যাসিয়াস তাকে বঞ্চিত করেন। ক্যাসিয়াস আরও বেশ কয়েকবার অসাধারণ দক্ষতায় রিয়ালকে বাঁচিয়েছিলেন। কিন্তু রোনালদো, বেনজেমা, বেলদের একের পর এক সুযোগ মিসের কারণে আর বাঁচতে পারেনি গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। উল্টো বার্নাব্যুতে উৎসব করে গেলো জুভেন্তাস।