চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাস। সেমিফাইনালের প্রথম লেগের ম্যাচে জুভিদের বিপক্ষে ২-১ গোলে হেরে যায় ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ।

ইনজুরির কারণে এ ম্যাচে জুভেন্টাসের হয়ে পল পগবা ও রিয়ালের হয়ে লুকা মডরিচ ও করিম বেনজেমা খেলতে পারেননি।

তুরিনোর জুভেন্টাস স্টেডিয়ামে খেলা শুরুর আট মিনিটেই এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। কার্লোস তেভেজের মাটি কামরানো শট ইকার ক্যাসিয়াস কোনোমতে ফিরিয়ে দিলেও বল জালে জড়াতে ভুল করেননি রিয়ালেরই সাবেক স্ট্রাইকার মোরাতা। ২৮ মিনিটে গোলপোস্টের ডান প্রান্ত থেকে জেমস রদ্রিগেজের বাড়ানো বলে হেডে গোল করে সমতা আনেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। এরই সঙ্গে লিওনেল মেসিকে ছাড়িয়ে হয়ে যান চ্যাম্পিয়নস লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতা (৭৬ গোল)।

নিশ্চিতভাবে এগিয়ে যেতে পারত রিয়াল। ৪১ মিনিটে বাম প্রান্ত থেকে মিডফিল্ডার ইস্কো মাইনাস করলে গোলপোস্টের ছয় গজ দূর থেকে হেড করেন রদ্রিগেজ। কিন্তু, বারে লেগে বল ফিরে আসায় এ যাত্রায় বেঁচে যায় জুভিরা।

দ্বিতীয়ার্ধের ৫৭ মিনিটে ডি-বক্সের মধ্যে ডিফেন্ডার ড্যানিয়েল কারভাজাল তেভেজকে ট্যাকল করলে রেফারি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন। স্পট কিক থেকে এই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকারের গোলেই  ২-১ গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা।

বল দখলের লড়াইয়ে দুই দলই ছিল প্রায় সমানে সমান। তবে, রিয়াল যতটা না গতিময় ফুটবল খেলেছে তার চেয়ে কিছুটা ধীরস্থির ছিল স্বাগতিকরা। এক যুগ পর সেমিফাইনাল খেলতে নামাতেই হয়তো কিছুটা স্নায়ুচাপে ছিল জুভিরা।  নির্ধারিত সময়ের তিন মিনিট আগে এবং যোগ করা সময়ে দু’টি গোলের সুযোগ নস্যাৎ না করলে আরো বড় ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ত পিরলো-ভিদালরা।

রেফারি শেষ বাঁশি বাজানোর সঙ্গে সঙ্গেই গ্যালারিতে থাকা দর্শকরা উল্লাসে ফেটে পড়েন। অন্যদিকে, মাঠে থাকা স্প্যানিশ জায়ান্টরা হতাশায় নিমজ্জিত ছিল। বার্নাব্যুতে ফিরতি পর্বের ম্যাচেই নির্ধারিত হবে কারা উঠবে স্বপ্নের ফাইনালে।