থাইল্যান্ডের সেনাবাহিনীর কিছু অসাধু কর্মকর্তা রোহিঙ্গাদের পাচারের সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ করেছে দেশটির পুলিশ। এ ব্যাপারে প্রমাণও পেয়েছেন বলে দাবি তাদের। তবে, সেনাবাহিনীর দাবি সরাসরি মানব পাচারের সঙ্গে তাদের কোনো সদস্য জড়িত নয়।
মঙ্গলবার ব্যাংকক পোস্টের খবরে বলা হয়েছে, রানং প্রদেশের মুয়াং জেলায় মানব পাচারে জড়িত সন্দেহভাজন এক সেনা কর্মকর্তার বাড়িতে অভিযান চালানো হয়েছে।
থাইল্যান্ডে মানব পাচার চক্রের হোতা আংচোতিপান সোমবার আত্মসমর্পণ করার পরই সেনা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে পুলিশ।
এদিকে, মানব পাচারের সঙ্গে জড়িতের নাম প্রকাশ করতে গণমাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন থাই প্রধানমন্ত্রী প্রেয়ুথ চ্যান ওচা। সমুদ্র পথে থাইল্যান্ডের রানং প্রদেশে পৌঁছানোর পর সীমান্তবর্তী পাদাং বেসার জেলা দিয়ে মালয়েশিয়ায় পাচার করা হয় রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি অভিবাসীদের।