ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আজ শনিবার রাত ১২টা থেকে বুধবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। এ ছাড়া ২৭ এপ্রিল রাত ১২টা থেকে ২৮ এপ্রিল দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত অন্য সব ধরনের যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

আজ শনিবার রাজধানীর মিন্টো রোডে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তথ্যকেন্দ্রে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানানো হয়। ডিএমপি কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া এ তথ্য জানিয়েছেন।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সিটি নির্বাচনে ৭০ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্য থাকবে। প্রত্যেক বড় কেন্দ্রে ১২ জন করে পুলিশ ও আনসার সদস্য থাকবেন। বড় কেন্দ্রে ১২টি ও ছোট কেন্দ্রে ১০টি আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে পুলিশ নিরাপত্তার দায়িত্বপালন করবে।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ডিএমপি কমিশনার আরও জানান, নির্বাচনে মোট কেন্দ্র এক হাজার ৯৮২ টি। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রের সংখ্যা এক হাজার ৪২৯ টি।
২৫ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ১ মে রাত ১২টা পর্যন্ত সব ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র বহন, প্রদর্শন নিষিদ্ধ করেছে ডিএমপি। যদি কারও কাছে এসব অস্ত্র পাওয়া যায় তাহলে অস্ত্র আইনে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ছাড়া ২৬ এপ্রিল রাত ১২টা থেকে ৩০ এপ্রিল রাত ১২টা পর্যন্ত সব ধরনের জনসভা, অনুষ্ঠান, মিছিল, শোভাযাত্রা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ভোটকেন্দ্রের ৪০০ গজের মধ্যে কোনো প্রার্থী কোনো ক্যাম্প স্থাপন করতে পারবে না বলে জানানো হয়েছে।
নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি প্রধান নিয়ন্ত্রণকক্ষ থাকবে। এ ছাড়া চারটি নিয়ন্ত্রণকক্ষ থাকবে।
নির্বাচনের আগের দিন দক্ষিণে আটটি ও উত্তরে আটটি মোট ১৬টি স্থান থেকে ব্যালটসামগ্রী বিতরণ করা হবে। সে জন্য এসব এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হবে।
ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারে সেজন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে দুটি করে ভ্রাম্যমাণ দল টহল দেবে। তিনটি ভোটকেন্দ্রের জন্য একটি করে স্ট্রাইকিং রিজার্ভ থাকবে।
তবে রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি নিয়ে নির্বাচনী এজেন্ট, দেশি বিদেশি পর্যবেক্ষক, সাংবাদিক নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা, কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য এবং সেবামূলক কাজে নিয়োজিত অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি চলাচল করতে পারবে।