বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। রোববার বেলা ১২ টা ২০ মিনিটে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। বেলা ১১ টার দিকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে হঠাৎ তিনি অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। তবে হাসপাতালের হৃদরোগ বিভাগের প্রধান ডা. রইস উদ্দিন দাবি করেন, হাসপাতালে নিয়ে আসার পর তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। তিনি জানান,হাসপাতালে আনার আগেই পিন্টু মারা যান।

রাজশাহীর কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার শফিকুল ইসলাম খান জানান, নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু নানাবিধ অসুখে ভুগছিলেন। হার্ট, কিডনি, ব্লাডপ্রেসারসহ চোখ ও বুকের সমস্যাও ছিল তার। সকালে তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত তাকে প্রথমে কারা হাসপাতালে এবং অবস্থার অবনতি হলে তাকে কারাগার থেকে রামেক হাসপাতালের ভর্তি করা হয়।

বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় ২০০৯ সালে গ্রেফতার হন বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু। তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহী বিডিআর জওয়ানদের পালিয়ে যেতে সহযোগিতার অভিযোগ আনা হয়। অভিযোগে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়। গত ২০ এপ্রিল তাকে কাশিমপুর কারাগার থেকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তর করা হয়। এর আগেও গত সপ্তাহে হার্টের সমস্যায় তাকে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।