বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রি. জে. (অব.) আ স ম হান্নান শাহ বলেছেন, ‘বিএনপি ক্ষমতায় গেলে নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু হত্যার বিচার করা হবে।’

মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে মহিলা দল আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় এ কথা বলেন হান্নান শাহ।

তিনি বলেন, ‘আমরা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছি পিন্টু অসুস্থ হওয়ার পর জেলারকে অনুরোধ করেছিলেন, আমাকে হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু জেলার তাকে হাসপাতালে নিয়ে তো যাননি বরং তাকে অনেক কথা শুনিয়েছেন। যার ফলে তিনি হার্ট অ্যাটাক করেন।’

সরকারকে উদ্দেশ করে হান্নান শাহ বলেন, ‘বিচারবহির্ভূত হত্যা, গুম ও খুনের যারা শিকার হয়েছেন তাদের পরিবার সরকারের উপর ক্ষুব্ধ এবং বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলার জন্য জনগণ সরকারের উপরে ক্ষুব্ধ রয়েছে। তাই সরকারকে আমি বলতে চাই আগুন নিয়ে খেলা বন্ধ করুন। নাহলে সর্বনাশটা আপনাদেরই হবে।’

‘সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সরকার দলীয় সন্ত্রাসী ও নারীকর্মীদের উপর বর্বরোচিত সহিসংসতা হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি’ শীর্ষক এ সভায় হান্নান শাহ আরো বলেন, ‘সিটি নির্বাচন প্রত্যাহার করে আমরা সরকারের খেলা বন্ধ করে দিয়েছি। কারণ, সরকার চেয়েছিল নির্বাচনের দিন দুপুর ২টার সময় সেনাবাহিনীকে নামিয়ে জনগণকে দেখাতে- এই দেখ সেনাবাহিনীকে নামিয়েছি, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। কিন্তু সরকারের এই পরিকল্পনা আমরা বাস্তবায়িত হতে দেইনি।’

সিটি নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী কী বললেন তাতে বিএনপির কিছু যায়-আসে না এমন মন্তব্য করে হান্নান শাহ বলেন, ‘হাইকোর্ট শেখ হাসিনাকে রঙ হেডেড বলে গালি দিয়েছিল। তাই শেখ হাসিনার মাথায় গণ্ডগোল রয়েছে। যার মাথায় গণ্ডগোল রয়েছে তার কাছ থেকে ভালো কিছু আশা করা যায় না।’

হান্নান শাহ আরো বলেন, ‘প্রবীণ সাংবাদিক এ বি এম মূসা সরকারকে বলে গিয়েছিলেন তুই চোর। সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট চুরি করে প্রমাণ করলো সরকার আসলেও চোর।’
আয়োজক সংগঠনের সভাপতি নূরে আরা সাফার সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী সমিতির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রুহুল আমিন গাজী, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, সাবেক সাংসদ রাশেদা বেগম হীরা, বিলকিস ইসলাম প্রমুখ।