সোমবার বিকেল ৪টা ৫ মিনিট থেকে ৪টা ২৫ মিনিট পর্যন্ত ডিএমপি সদর দপ্তরে আইনজীবীদের ৬ জনের একটি প্রতিনিধি দল অপেক্ষা করে ফিরে যান।

আইনজীবীরা জানিয়েছেন, ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার বিষয়টি ছিল পূর্ব নির্ধারিত। তারপরও তিনি তাদের সঙ্গে দেখা করেননি।

ঢাকা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মাসুদ তালুকদার বলেন, ‘ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়টি পূর্ব নির্ধারিত হলেও তিনি আমাদের সঙ্গে দেখা করেননি। এমনকি ডিএমপির পক্ষ থেকে অসৌজন্যমূলক আচরণ করা হয়েছে। তারা প্রতিনিধি দলকে বসতেও বলেনি।’

তিনি বলেন, ‘ডিএমপি কমিশনার ব্যস্ত মানুষ। ব্যস্ততার কারণে তিনি দেখা নাই করতে পারেন। আমাদের বসতে বলে বিষয়টি জানানো যেত। কিন্তু তা না করে অসৌজন্যমূলক আচরণ করা হয়েছে। আমাদের কিছুই জানানো হয়নি। উল্টো দুই জন এসআই আমাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছে।’

ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে দেখা করতে না পেরে তিনি বলেন, ‘ডিএমপি কমিশনারে সঙ্গে দেখা করতে পারিনি। আমরা কমিশনারকে যা বলতে এসেছিলাম, তাতো বলতে পারিনি। আপনাদের (সাংবাদিকদের) মাধ্যমে কমিশনারকে বলতে চাই, বিএনপি সমর্থিক মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের সরকার দল ও পুলিশ ব্যাপকভাবে হয়রানি করেছে। আগামীকালের (মঙ্গলবার) নির্বাচনে যেন পুলিশ নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করে।’

অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, ‘যদি নির্বাচনে পুলিশ নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করে তবে নীরব বিপ্লব ঘটে যাবে।’ তিনি পুলিশকে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করার জন্য আহ্বান জানান।

প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন অ্যাডভোকেট ওমর ফারক ফারুকী, অ্যাডভোকেট মোসলেহ উদ্দিনসহ চারজন।