থাইল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার থেকে নৌকায় করে বিদেশ পাড়ি জমানো অভিবাসীদের ৩২টি গণকবরের সন্ধান পাওয়া গেছে।

শুক্রবার ওই গণকবরগুলো সন্ধান পাওয়া যায় বলে থাই কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে ব্যাংক পোস্ট, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস টাইমস, ফাস্ট পোস্টসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো এ খবর জানিয়েছে।

থাইল্যান্ডের শঙ্খলা প্রদেশের সাদাও জেলায় ওই গণকবরগুলোর অবস্থান। মালয়েশিয়ায় নিয়ে যাওয়ার জন্য মানব পাচারকারীরা থাইল্যান্ডের সীমান্তবর্তী ওই এলাকা ব্যবহার করে থাকে। মানব পাচারের জন্য স্থানটি কুখ্যাত হিসেবে পরিচিত। নৌকায় করে যাওয়া অভিবাসীদেরে আটকে রাখা পরিত্যক্ত বেশ কিছু ক্যাম্পও রয়েছে সেখানে।

ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার কর্মী সাতহিত থামসুয়ান বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘৩২টি গণকবর ও চারটি মৃতদেহের সন্ধান পাওয়া গেছে। মৃতদেহগুলো ময়নাতদন্ত করার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘মৃতদেহগুলো বেশ জীর্ণ। একইসঙ্গে বাংলাদেশ থেকে আসা একজনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে নিকটবর্তী পাদাং বাসার শহরের একটি হাসাপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে।’

গণকবরগুলো বাংলাদেশ ও মিয়ানমার থেকে আসা নাগরিকদের বলে প্রাথমিকভাবে জানিয়েছেন ওই ব্যক্তি। তবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

প্রতি বছর ১০ হাজারের বেশি মিয়ানমার নাগরিক, বিশেষত মুসলিম রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশিকে থাইল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলের কুখ্যাত ওই মানব পাচার রুট দিয়ে মালয়েশিয়ায় পাচার করা হয়। চাকরি দেওয়ার নাম করে এসব মানুষকে সমুদ্রপথে নৌকায় করে বিদেশ পাচার করে একটি চক্র। পথে নৌকায় চালানো হয় বিভিন্ন নির্যাতন। আবার অনেককে ওই এলাকায় অস্থায়ী ক্যাম্প গেড়ে নির্মম নির্যাতন করা হয়। নির্যাতন ও খাবারের অভাবে অনেকে সমুদ্রেই মারা যান। ক্যাম্পে যাদের মৃত্যু হয় তাদের সেখানেই মাটির নিচে পুতে ফেলা হয়। আবার যাওয়ার পথে অনেকে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে আটক হয়। বর্তমানে সমুদ্রপথে মানব পাচারের সংখ্যা বেড়েছে।