রানা প্লাজার নামে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে কোন তহবিল নেই। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) রানা প্লাজা ধসে হতাহতদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একটি তহবিল রয়েছে বলে যে বিভ্রান্তিকর বক্তব্য দিয়েছে সে ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে এ কথা বলা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দৈনিক প্রথম আলোর অনলাইন সংস্করণে টিআইবির এ বক্তব্য প্রকাশিত হয়েছে। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে দেয়া ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, রানা প্লাজার ঘটনায় হতাহতদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ১২৭ কোটি টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে এবং এর মধ্যে ১০৫ কোটি টাকা অব্যবহৃত রয়েছে বলে টিআইবি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে যে তথ্য দিয়েছে তা সত্য নয়।
ব্যাখ্যায় বলা হয়, বিভিন্ন সময় নানাবিধ দুর্যোগ মোকাবেলাসহ দুঃস্থদের সাহায্যার্থে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে অর্থ প্রদান করেন। এ তহবিল থেকে দুঃস্থ মানুষের চিকিৎসা, লেখাপড়া, গৃহনির্মাণ, পরিবারের ভরণপোষণ ইত্যাদির জন্য নিয়মিতভাবে অর্থসাহায্য প্রদান করা হয়। বিভিন্ন দুর্ঘটনায় যারা আয়-সক্ষমতা অথবা পরিবারের উপার্জনক্ষম সদস্য হারিয়েছেন তাদের অনুকূলে ৫ লাখ টাকা থেকে শুরু করে ৩০ লাখ টাকার পরিবার সঞ্চয়পত্র করে দেয়া হয়েছে।
ব্যাখ্যায় বলা হয়, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে অনুদান এসেছে। তবে রানা প্লাজা নামে কোন তহবিল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে নেই। এ নামে কোন অনুদানের চেকও আসে নাই। ফলে রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর আলাদাভাবে কোন অর্থ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে জমা পড়ার রেকর্ড নেই। এতে আরও বলা হয়, প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল হিসাবটি সোনালী ব্যাংক, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় কর্পোরেট শাখায় চালু রয়েছে।