বছরে এক হাজার ২০০ গাড়ি উৎপাদন ক্ষমতা নিয়ে বেসরকারি উদ্যোগে দেশে প্রথম গাড়ি সংযোজন কারখানা স্থাপন করছে দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্পপ্রতিষ্ঠান পিএইচপি পরিবার। চলতি বছরের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসেই এই কারখানায় উৎপাদিত সেডান কার বাজারজাত করার উদ্যোগ নিয়েছে তারা। কারখানা স্থাপনে পিএইচপিকে কারিগরি সহায়তা দেবে বিশ্ববিখ্যাত মালয়েশিয়ান ‘প্রোটন অটোমোবাইল’। প্রায় ৪০০ কোটি টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রামের আনোয়ারার বরুমছড়া এলাকায় ৩০ একর জমির ওপর স্থাপিত কারখানায় ৫০ জন বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলীসহ শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী কাজ করবেন।

জানা গেছে, তিন বছর ধরেই জাপানের বিশ্বখ্যাত মিৎসুবিশি করপোরেশনের সহযোগিতায় দেশে প্রথম সেডান কার সংযোজনের জন্য চেষ্টা চালিয়ে আসছিল সরকারি গাড়ি সংযোজনকারী প্রতিষ্ঠান প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজ। এ জন্য মিৎসুবিশির কাছ থেকে গ্রিন সিগন্যাল পেলেও আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় প্রকল্পটি আলোর মুখ না দেখেনি।

১৬০০ সিসির প্রোটন প্রিভে মডেলের গাড়ি সংযোজনের ব্যাপারে পিএইচপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহসিন চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ইতিমধ্যে আমাদের কারখানা স্থাপনের কাজ শুরু হয়ে গেছে। কিছুদিনের মধ্যে মালয়েশিয়া থেকে মেশিনারিজ চলে আসবে।’

গাড়ির দাম প্রসঙ্গে মহসিন চৌধুরী আরো বলেন, ‘দেশে বিক্রীত ১৫০০ সিসির টয়োটা করোলা রিকন্ডিশন্ড গাড়ির দামেই প্রোটন গাড়ি পাওয়া যাবে। জ্বালানি খরচও পড়বে তুলনামূলক কম। ২৫ হাজার কিলোমিটারের মধ্যে কোনো গাড়িতে যান্ত্রিক গোলযোগ দেখা দিলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই সেই কার আমরা মেরামতের ব্যবস্থা করে দেব বিনা খরচে। দেশের ছয়টি জেলায় ছয়টি শোরুমের পাশাপাশি থাকবে সার্ভিস সেন্টারও। ফলে যন্ত্রাংশেরও কোনো জটিলতা দেখা দেবে না।’

মহসিন চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের বর্তমান চুক্তি পাঁচ বছরের। এরপরই আমরা গাড়ির যন্ত্রাংশ তৈরির দিকে মনোযোগ দেব। একসময় হয়তো শতভাগ বাংলাদেশে উৎপাদিত যন্ত্রাংশ দিয়েই গাড়ি তৈরি করতে পারব।’

পিএইচপি সূত্র জানায়, বাংলাদেশে নির্মিত প্রোটন সেডান কারের নামকরণ হবে ‘প্রোটন পিএইচপি’। বিশ্ববিখ্যাত মালয়েশিয়ান ‘প্রোটন’ ব্র্যান্ডের সম্পূর্ণ নতুন এই গাড়ি সংযোজনকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে গত ১২ মার্চ মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গরে প্রোটন সেন্টার অব এক্সেলেন্স কমপ্লেক্সে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। প্রোটনের সিইও দাতো আবদুল হারিথ আবদুল্লাহ ও পিএইচপি বোর্ড অব ম্যানেজমেন্টের ডিরেক্টর মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন চৌধুরী চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও প্রোটনের চেয়ারম্যান ডা. মাহাথির মোহাম্মদ ও পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান সুফী মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। আরো উপস্থিত ছিলেন পিএইচপি ফ্যামিলির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহসিন চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক আক্তার পারভেজ চৌধুরী হিরু, পরিচালক জহিরুল ইসলাম রিংকু।

১৯৮৫ সালে প্রোটন সাগা দিয়ে সেডান কারের যাত্রা শুরু হয়েছিল মালয়েশিয়ায়। সেই বছর চার কোটি মানুষের দেশ মালয়েশিয়ায় এ ব্র্যান্ডের গাড়ি বিক্রি হয়েছিল ১৩ হাজার। পরের বছর বেড়ে দাঁড়ায় ৮৩ হাজার। বর্তমানে চীন, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড ও জার্মানিতে প্রোটন গাড়ি রপ্তানি হচ্ছে।