রচুপির অভিযোগে ৩ সিটিতেই নির্বাচন বর্জন করেছে বিএনপি। চট্টগ্রামে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করার পর ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনও বর্জন করেছে দলটি। নানা অনিয়ম ও কেন্দ্র দখলের অভিযোগে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন। নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মওদুদ আহমেদ বলেন, আমরা নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ হবে বলে আশা নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। কিন্তু সরকার, নির্বাচন কমিশন, র‌্যাব-পুলিশ একাকার হয়ে গেছে। নির্বাচনে ৫ শতাংশ ভোটা্রও এখন পর্যন্ত ভোট দিতে পারেনি। অথচ বেলা ১২টার আগেই অনেক কেন্দ্রে ভোট শেষ হয়ে গেছে বলে ভোট দিতে গিয়ে ভোটাররা ফেরত আসেন। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে রাষ্ট্র একদলীয় ফ্যাসিবাদ আচরণ করেছে। নির্বাচনকে সরকার প্রহসনে পরিণত করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা সিটি উত্তরের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও ঢাকা দক্ষিণের মেয়রপ্রার্থী মির্জা আব্বাসের পক্ষে তার স্ত্রী আফরোজা আব্বাস উপস্থিত ছিলেন। মওদুদ আহমেদের নির্বাচন বর্জন ঘোষণার আনুষ্ঠানিক বক্তব্য শেষ হলে তাবিথ আউয়াল ও মির্জা আব্বাসের পক্ষে তার স্ত্রী নির্বাচনের শরুতে বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শণে গিয়ে বড় ধরণের অনিয়ম, কেন্দ্র থেকে এজেন্ট বের করে দেয়া, জালভোট ও ভোটারদের ভোটে বাধা প্রদানের কথা উল্লেখ করেন। তারা বলেন, এসব বিষয়ে কেন্দ্র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও আইনশৃংখলা বাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্তদের কাছে অবহিত করে কোন ফল পাওয়া যায়নি। পরে নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তাদের বিয়য়গুলো অবহিত করেও আমরা কোন পদক্ষেপ দেখিনি। বরং বেলা বাড়ার সাথে সাথে সরকার দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থীর লোকজন একএকে কেন্দ্র গুলো দখলে নিয়ে নেয়।

এর আগে বেলা ১১টা ২০ মিনিটে জালভোট, কেন্দ্র দখলের অভিযোগে মেয়র প্রার্থী এম মনজুর আলমের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী সংবাদ সম্মেলন করে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন বর্জনের  ঘোষণা দেন। আমীর খসরু অভিযোগ করেন, ভোট শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই আওয়ামী লীগের কর্মীরা নগরের ৮০ ভাগ কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেন। বিএনপি সমর্থক প্রার্থীদের পোলিং এজেন্ট ও কর্মীদের বের করে দেয়া হয়।

চট্টগ্রাম বিএনপির সভাপতি বলেন, এরা (আওয়ামী লীগ) যতদিন ক্ষমতায় থাকবে, ততদিন সাধারণ মানুষ আর ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে না।

এদিকে নির্বাচনে নজিরবিহীন অনিয়মের প্রতিবাদে রাজনীতি থেকে মেয়রপ্রার্থী মনজুর আলম অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি আর রাজনীতি করব না। আমি এখন থেকে সমাজসেবা নিয়ে ব্যস্ত থাকব।

এর আগে ভোট সুষ্ঠু হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী এম মনজুর আলম। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় চট্টগ্রাম হাজী দাউদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেয়ার সাংবাদিকদের এ কথা বলেন মনজুর আলম।

তিনি বলেন, ভোট সুষ্ঠু হচ্ছে না। কয়েকটি কেন্দ্র থেকে আমার এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে। বিষয়টি রিটার্নিং অফিসারকে জানিয়েছেন বলে জানান তিনি।

এদিকে বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচন বর্জন বিষয়ে প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, নির্বাচন বর্জনের মত কোন ঘটনা তার পক্ষ থেকে ঘটেনি। মনজুর পরাজয় নিশ্চিত জেনে ভোট বর্জন করেছে।