শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, বিনা মূল্যের পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন, মুদ্রণ ও বিতরণ একটি বিশাল কার্যক্রম। এর সাথে সংশ্লিষ্ট সকল কর্মকর্তাকে আরো সতর্কতার সাথে কাজ করতে হবে।

আজ সোমবার মতিঝিলে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) অডিটোরিয়ামে ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের বিনা মূল্যের পাঠ্যপুস্তক মুদ্রণসংক্রান্ত মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। এনসিটিবি এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর হাতে বছরের শুরুতে বই পৌঁছে দিতে চাই। এর কোনো ব্যত্যয় করা যাবে না। এখানে ব্যর্থতার কোনো সুযোগ নাই। বই ছাপানো, তৈরি করা এবং বিতরণ কার্যক্রম দেশের মানুষের কাছে একটি অত্যন্ত প্রশংসনীয় উদ্যোগ।

এনসিটির চেয়ারম্যান প্রফেসর নারায়ণ চন্দ্র সাহার সভাপতিত্বে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. আলমগীর এবং এনসিটিবির সদস্য ড. রতন সিদ্দিকী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বই ছাপানোর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সকলকে নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, প্রস্তুতির কাজগুলো সঠিক সময়ে শেষ করতে হবে। নিখুঁত বই ছাপাতে হবে। গত বছর যেসব ভুল হয়েছিল, সেগুলো সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে। নতুন কোনো ভুল যাতে না হয়, সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। সামান্য ভুলের কারণে একটি বড় অর্জনও ম্লান হয়ে যেতে পারে। কোনো ভুল হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের তার দায় নিতে হবে।

সঠিক সংখ্যায় পাঠ্যপুস্তক যাতে উপজেলা পর্যায়ে পৌঁছে সে জন্য মন্ত্রণালয় পর্যায়ে একটি মনিটরিং কমিটি গঠনেরও নির্দেশ দেন শিক্ষামন্ত্রী।

এনসিটিরির চেয়ারম্যান নারায়ণ চন্দ্র সাহা বলেন, এবার অনলাইনে প্রাপ্তি স্বীকারপত্র নেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। এতে উপজেলা পর্যায়ে পাঠ্যপুস্তক প্রাপ্তির ক্ষেত্রে আর গড়মিল থাকবে না। এর আগে শিক্ষামন্ত্রী এনসিটিবি কার্যালয়ে একটি আইসিটি সেল উদ্বোধন করেন।