ধর্মীয় কারণে রুমালে মাথা ঢাকা ছিল বলে চাকরি দেয়া হয়নি এক মুসলিম নারীকে৷‌ তার পক্ষেই গেল মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের রায়৷‌ সেদেশের নাগরিক অধিকার রক্ষা আইনে, ধর্মীয় বিশ্বাস বা আচরণের কারণে কোনো ব্যক্তিকে চাকরির সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা অনৈতিক এবং অবৈধ৷‌ সেই আইনি ধারাটিকেই ফের ঊর্ধে তুলে ধরল আমেরিকার সর্বোচ্চ আদালত৷‌ এই নিয়ে দ্বিতীয়বার রায় দিল সেদেশের কোনো মুসলিম নাগরিকের ধর্মীয় অধিকার সুরক্ষিত রাখার পক্ষে৷‌
এর আগে জানুয়ারিতে আরকানসাসের এক মুসলিম কারাবন্দী আদালতে অভিযোগ করেছিলেন, নিজের ধর্মবিশ্বাস অনুসারে তিনি দাড়ি রাখতে চান, কিন্তু জেলবন্দীদের ধর্মাচরণের অধিকার সংক্রান্ত চলতি প্রাদেশিক আইন অনুযায়ী তাকে সেই অনুমতি দিচ্ছে না কারা কর্তৃপক্ষ৷‌ সেবারও মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট ব্যক্তিমানুষের অধিকারকেই আইনি স্বীকৃতি দিয়েছিল৷‌ এবারও সামাম্হা এলাউফ নামে ওই নারীর ক্ষেত্রে একই ব্যাপার ঘটল৷‌
২০০৮ সালে, যখন সামাম্হার ১৭ বছর বয়স, আমেরিকার বিখ্যাত পোশাক সংস্হা ‘অ্যাবরক্রম্বি অ্যান্ড ফিচ‍্’-এর ওকলাহামার এক শাখা বিপণিতে বাচ্চাদের জামা-কাপড়ের বিভাগে সেলস‍্ গার্লের কাজের ইন্টারভিউ দিতে গিয়েছিলেন৷‌ কিন্তু যেহেতু সামাম্হার মাথা রুমালে ঢাকা ছিল এবং তিনি জানিয়েছিলেন যে ওভাবে মাথা ঢেকেই তিনি কাজ করতে চান, চাকরিটা তাকে দেয়া হয়নি৷‌ আমেরিকায় সবার জন্য সমান চাকরির সুযোগ সুরক্ষিত রাখার যে কমিশন আছে, সেখানে গিয়ে নালিশ করেছিলেন সামাম্হা৷‌ তার হয়ে ওই কমিশনই মামলা দায়ের করেছিল৷‌ বিচারের দায়িত্বে থাকা ন’জন জুরির মধ্যে আটজনই ধর্মীয় অধিকার সুরক্ষিত রাখার পক্ষে সায় দিয়েছেন৷‌