দশম জাতীয় সংসদের ১৬তম (বাজেট) অধিবেশন শুরু হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল ১১টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়। এর আগে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সংসদের কার্য-উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে অধিবেশন ১৩ জুলাই পর্যন্ত চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আগামী বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টায় ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করবেন।

সংসদ সচিবালয় সূত্র জানায়, কার্য-উপদেষ্টা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রমজান মাসে প্রতিদিন সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হবে। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ২৩ থেকে ২৭ জুন পর্যন্ত অধিবেশন মুলতবি থাকবে। স্পিকার প্রয়োজনে অধিবেশনের মেয়াদ ও সময়সীমা বাড়াতে ও কমাতে পারবেন। আর আগামী বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টায় প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপন ও আলোচনা শেষে ২৯ জুন তা পাস করা হবে। এ ছাড়া সংসদে প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর ৪৫ ঘণ্টা আলোচনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে কার্য-উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে কমিটির সদস্য বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ, পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, প্রধান হুইপ আ স ম ফিরোজ, মইন উদ্দীন খান বাদল এবং আইনমন্ত্রী আনিসুল হক উপস্থিত ছিলেন। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বিশেষ আমন্ত্রণে বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন।

এদিকে, সংসদ অধিবেশনের শুরুতে শোক প্রস্তাব উত্থাপন করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ আব্দুর রশিদ ও আবদুল মতিন মিয়াসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মৃত্যুতে আনীত শোক প্রস্তাবটি সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়। প্রস্তাবে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়। পরে প্রয়াতদের আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়। এর আগে অধিবেশনের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মনোনয়ন দেওয়া হয়। যারা স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকারের অনুপস্থিতিতে সংসদের বৈঠক পরিচালনা করবেন।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যরা হলেন ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, শামসুল হক টুকু, মাহবুব আলী, এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার এবং ফলিজাতুন নেসা বাপ্পি।

বাজেট উত্থাপন : আগামীকাল বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সংসদে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের জন্য বাজেট প্রস্তাবনা উত্থাপন করবেন। এবারের বাজেটের আকার হবে চার লাখ কোটি টাকার বেশি। যা দেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ বাজেট। এবারো ডিজিটাল ডিসপ্লের মাধ্যমে বাজেট উপস্থাপন ও বক্তব্য দেবেন অর্থমন্ত্রী। এবার তার সঙ্গে যুক্ত হবে একটি ভিডিও চিত্র। ওই ভিডিও চিত্রে বর্তমান সরকারের সামগ্রিক সাফল্য তুলে ধরা হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বাজেট সংসদে উপস্থাপনের আগে তা মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন নেওয়া হবে। মন্ত্রিসভার বৈঠক সংসদ ভবনে হবে। মন্ত্রিসভার অনুমোদনের পর তা রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে। ওই দিন সংসদ ভবনে উপস্থিত থাকবেন রাষ্ট্রপতি। তিনি অর্থমন্ত্রী বাজেট বক্তব্য শুনবেন। সংসদে উত্থাপিত প্রস্তাবনা নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা শেষে আগামী ২৯ জুন পাস হবে। এর আগে চলতি অর্থবছরের সম্পূরক বাজেট পাস হবে।