পাকিস্তানের নারীশিক্ষা আন্দোলনের কর্মী মালালা ইউসুফজাই জাতিসংঘের শান্তিদূত হয়েছেন। তিনি সংস্থাটির সর্বকালের সর্বকনিষ্ঠ শান্তিদূত হলেন। আজ মঙ্গলবার বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

গতকাল সোমবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নোবেল শান্তি পুরস্কারজয়ী মালালাকে এই সম্মানজনক দায়িত্ব দেওয়া হয়।

মালালাকে এই সম্মানজনক দায়িত্ব দিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

মালালার উদ্দেশে জাতিসংঘ মহাসচিব বলেছে, ‘আপনি শুধু একজন বীরই নন, খুব অঙ্গীকারনিষ্ঠ আর উদার মানুষও।’

১৯ বছর বয়সী মালালা বিশ্বব্যাপী সব মেয়ের স্কুলে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তার ব্যাপারে মনোযোগ আকর্ষণে গুরুত্ব দেবেন।

পাকিস্তানের প্রত্যন্ত সোয়াত উপত্যকার বাসিন্দা মালালা ২০১৪ সালে সবচেয়ে কম বয়সে নোবেল শান্তি পুরস্কার জয় করেন।

মেয়েসহ সব শিশুর শিক্ষার অধিকারের পক্ষে তাঁর সাহসী আন্দোলনের স্বীকৃতি হিসেবে নোবেল কমিটি ওই পুরস্কার দেয়।

তালেবানের বাধার পরেও মালালা নারীশিক্ষা বিস্তারে কাজ করে যাওয়ায় ২০১২ সালে তাঁকে জঙ্গিরা গুলি করেছিল। তবে প্রাণে বেঁচে যায় তখনকার কিশোরী মালালা।

এখন যুক্তরাজ্যে পড়ালেখা করছেন মালালা। পাশাপাশি নারীশিক্ষা বিস্তারের পক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

জাতিসংঘের শান্তিদূত পদে মোহাম্মদ আলী, মাইকেল ডগলাস, লিওনার্দো ডি’ক্যাপ্রিও প্রমুখ খ্যাতিমান ব্যক্তিত্ব দায়িত্ব পালন করেছেন। জাতিসংঘের কাজে বিশ্ববাসীর মনোযোগ টানতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল ব্যক্তিদের এই সম্মানজনক পদ দেওয়া হয়।