কিউবা থেকে ফুসফুসের ক্যান্সারের প্রতিষেধক নিয়ে আসছে আমেরিকা। আপাতত ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল হিসেবেই ভ্যাকসিনটি ব্যবহার করা হবে। মার্কিনিদের ফুসফুসে ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি প্রবল। আমেরিকায় মৃত্যুহারের দিক দিয়ে চতুর্থ স্থানে রয়েছে এ রোগটি। তাই ফুসফুসে ক্যান্সারের রাশ টানতে কিউবা থেকে CimaVax EGF আনাচ্ছে আমেরিকা। এই ক্যারেবিয়ান দেশটি বরাবরই মেডিক্যাল গবেষণায় জোর দিয়ে এসেছে। গত দুই দশকে কিউবা সরকার কয়েক কোটি বিলিয়ন খরচ করেছে শুধু গবেষণাখাতে। দেড় দশক আগে ফুসফুসের ক্যান্সার প্রতিষেধক CimaVax EGF আবিষ্কারের পরপরই তা ক্লিনিক্যালি পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল লন্ডনে। সেখান থেকে ইতিবাচক রিপোর্ট আসার পর, ২০১১ থেকেই কিউবায় এ ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হয়। শুধু এই ভ্যাকসিন নিতে প্রতি বছর ক্যান্সারে আক্রান্ত অনেক বিদেশির ভিড় হয় কিউবায়। ভ্যাকসিনটির দাম খুব বেশি নয়, সাধারণের ধরাছোঁয়ার মধ্যে। কিউবার গবেষকদের দাবি, তাদের আবিষ্কৃত ভ্যাকসিনটি ফুসফুসে ক্যান্সার প্রতিরোধে সক্ষম না হলেও, টিউমার কমাতে পারে, এমন অ্যান্টিবডি তৈরি করে।