আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের কূটনৈতিক পাড়ায় শক্তিশালী গাড়িবোমা বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯০ জনে। তবে এ সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে। বিস্ফোরণে আহত হয়েছে অন্তত ৪০০ জন।

গতকাল বুধবার সকালের ব্যস্ত সময়ে জানবাক স্কয়ারে জার্মান দূতাবাসের কাছে এ বিস্ফোরণ ঘটে। হতাহতদের বেশির ভাগই বেসামরিক লোক। তাদের মধ্যে নারী ও শিশুও রয়েছে।

এখন পর্যন্ত কোনো গোষ্ঠী এ হামলার দায় স্বীকার করেনি। জঙ্গিগোষ্ঠী তালেবান জানিয়েছে, তারা এ হামলার সঙ্গে জড়িত নয়। তারা এ হামলার ‘তীব্র নিন্দা’ জানিয়ে বলেছে, ঘটনার বিষয়ে তারা তথ্য সংগ্রহ করছে। তবে সাম্প্রতিক মাসগুলোতে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) কাবুলে কয়েকটি হামলা চালিয়েছে। গতকালের হামলাটি যারাই চালিয়ে থাকুক, এতে আফগানিস্তানজুড়ে নিরাপত্তা পরিস্থিতি নাজুক হয়ে পড়ার বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে গেছে।

বিস্ফোরণস্থলটি ভারতীয় দূতাবাস থেকে কয়েক শ মিটার দূরে এবং ভারতীয় দূতাবাসের সব কর্মী নিরাপদ আছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। কাবুলে ভারতীয় কূটনীতিক মানপ্রিত বোহরা বলেন, ‘আমরা সবাই নিরাপদ আছি। বিস্ফোরণটি অত্যন্ত শক্তিশালী ছিল। আমাদের ভবনের অনেকখানি ক্ষতি হয়েছে। জানালার কাচ ভেঙে যাওয়াসহ দরজাও উড়ে গেছে। ‘

ইউরোপবিষয়ক ফরাসি মন্ত্রী মেরিলে দ্যঁ সার্নেজ জানান, হামলায় ফ্রান্স ও জার্মানির দূতাবাস ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে প্রাথমিক তথ্যে জানা গেছে। বিস্ফোরণের তীব্রতায় জাপানি দূতাবাসের জানালারও কাচও উড়ে গেছে। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের অনেক কর্মকর্তাই হালকা আহত হয়েছেন। তাঁদের হাত-পা কেটে গেছে। ‘

বুলগেরিয়া কর্তৃপক্ষ জানায়, তাদের দূতাবাস ভবনেরও ক্ষতি হয়েছে। তাদের কর্মীদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনের প্রধান জিম ম্যাটিস সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, আফগানিস্তানে আফগান ও বিদেশি উভয় বাহিনীর সামনেই আগামী বছরটি অত্যন্ত কঠিন যাবে।