ইন্টারনেটের ব্যবহার যে হারে বাড়ছে তাতে আগামী আট বছরের মধ্যে বিদ্যমান সংযোগ সক্ষমতার সবটুকু নিঃশেষ হয়ে যাবে। এ নিয়ে ভীষণ চিন্তিত লন্ডনের রয়্যাল স্যোসাইটি। আগামী ১১ মে দু’দিনের এক জরুরি বৈঠক ডেকেছে তারা। সেখানে তলব করা হয়েছে ব্রিটেনের শীর্ষস্থানীয় প্রকৌশলী, পদার্থবিদ এবং টেলিকম সংস্থাগুলোর প্রযুক্তিবিদদের। প্রধান আলোচ্য বিষয় থাকবে আসন্ন ইন্টারনেট সঙ্কট সমাধানের উপায় বের করা।

এই ইন্টারনেট সঙ্কটের ধারণা দিতে রয়্যাল স্যোসাইটির ওই বৈঠকের সহ-আহ্বায়ক অ্যান্ড্রূ এলিসকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ দৈনিক ডেইলি মেইল জানিয়েছে, ইন্টারনেটের ব্যবহার যে হারে বাড়ছে তাতে আগামী আট বছরের মধ্যে নেট সংযোগের সমস্ত ক্ষমতাই নিঃশেষ হয়ে যাবে বিদ্যমান সব কেবল, ফাইবার অপটিকসের। ফলে, এমন একটা অবস্থায় আমরা পৌঁছাব যখন অতিরিক্ত ডেটা পাঠানোর জন্য একটি অপটিক্যাল ফাইবারও অবশিষ্ট থাকবে না।

তিনি আরো জানান, বর্তমানে যে হারে ব্রিটেনে ইন্টারনেট ব্যবহার হয়, তাতে আগামী ২০ বছরে ব্রিটেনে মোট বিদ্যুতের জোগান খরচ হয়ে যাবে শুধু ইন্টারনেট সংযোগের জন্য।

ইন্টারনেট টেলিভিশন, স্ট্রিমিং ভিডিও, উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন কমপিউটারের ব্যবহার যত বাড়ছে, দূরসংযোগের অবকাঠামোর উপর চাপও ততো বাড়ছে। টেলিকম সংস্থাগুলো অবশ্যই অতিরিক্ত কেবল দিয়ে এই বাড়তি চাহিদা মেটাতে পারে। কিন্তু, তার ফলে ইন্টারনেট ব্যবহারের খরচও বাড়াবে। বিশেষজ্ঞরা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, গ্রাহকদের হয় দ্বিগুণ খরচ দিতে হবে নতুবা তাদের এমন পরিসেবায় খুশি থাকতে হবে যেখানে বারবার ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন হবে।

প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের সর্বোচ্চ সংযোগ স্পিড ছিল ২ মেগাবিটস প্রতি সেকেন্ডে। বর্তমানে বিশ্বের অনেক দেশেই ১০০ মেগাবিটস প্রতি সেকেন্ড স্পিডে ইন্টারনেট থেকে কোনও কিছু ডাউনলোড করা সম্ভব।