আপাতত জেলে যেতে হচ্ছে না বলিউড সুপারস্টার সালমান খানকে

0
256

গত বুধবার নিম্ন আদালত তাঁকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়ে যে রায় দেন, উচ্চ আদালত তা স্থগিত করেছেন। একইসঙ্গে আপিল মামলার পরবর্তী শুনানি শুরু না হওয়া পর্যন্ত তিনি জামিনে থাকবেন বলেও আদেশ দিয়েছেন আদালত।

নিম্ন আদালতে কারাদণ্ডের রায় পাওয়ার পর সালমান উচ্চ আদালতে আপিল করেন। ওই আপিলের শুনানি শেষে আদালত তাঁকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলেন। এর পরই আজ শুক্রবার বিকেলে সালমান আত্মসমর্পণ করেন এবং ৩০ হাজার রুপি মুচলেকা দিয়ে জামিন পান। জামিন শেষে বাসায় ফিরে যান তিনি।
আপিল আবেদনের পরবর্তী শুনানি শুরু না হওয়া পর্যন্ত তিনি জামিনে থাকবেন। আগামী জুলাই মাসে আপিলের শুনানি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে বলে।
১৩ বছর আগে সালমানের গাড়ি ফুটপাতে চাপা দেয় পাঁচজনকে। এর মধ্যে ঘুমন্ত এক ব্যক্তি নিহত হন এবং আহত হন আরও চারজন। সালমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়, ওই সময় চালকের আসনে মদ্যপ অবস্থায় ছিলেন তিনি। এ ঘটনায় করা মামলায় গত বুধবার মুম্বাইয়ের জেলা ও দায়রা জজ ডি ডব্লিউ দেশপান্ডে সালমানকে দোষী সাব্যস্ত করে এই রায় দেন।
এ রায়ের পরপরই হাইকোর্টে তাঁর জামিন আবেদন করা হয়। আদালত তাঁর ৪৮ ঘণ্টার জামিন মঞ্জুর করেন। বাদী পক্ষ সুপ্রিম কোর্টে সালমানের জামিনের বিরোধিতা করে আবেদন করলেও সর্বোচ্চ আদালত এ জামিনাদেশ বহাল রাখেন।
আজ সকালে জামিনের ৪৮ ঘণ্টার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর সালমানের পক্ষে হাইকোর্টে আপিল আবেদন করেন। বিচারক অভয় থিপসে বলেন, ‘প্রসিকিউশন এমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট উত্থাপন করেছে, তা বিবেচনার প্রয়োজন রয়েছে।’
আদালতের রুদ্ধদ্বার কক্ষে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। তবে সালমান এ সময় হাইকোর্টে ছিলেন না। পরে আদালত পরবর্তী শুনানি না হওয়া পর্যন্ত নিম্ন আদালতের রায় স্থগিত করেন ও নতুন মেয়াদে জামিন মঞ্জুর করেন। তবে তাঁকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করে ৩০ হাজার রুপি মুচলেকা দিয়ে জামিন নিতে বলা হয়।
এই নির্দেশ অনুযায়ী বিকেলে সালমান নিম্ন আদালতে হাজির হয়ে মুচলেকা দিয়ে জামিন নেন।