ব্লগার রাজীব, অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদের পর এবার অভিজিতের মৃত্যু

download

মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে রক্তক্ষরণ হয়ে ব্লগার অভিজিৎ রায়ের মুত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ। অভিজিতের মাথায় ধারালো অস্ত্রের তিনটি গুরুতর জখম ছিল। যার ফলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। মাথা ছাড়াও তার পিঠে, ঘারে ও কপালের ডান পাশে একটি করে জখম ছিল। শুক্রবার দুপুর ১টায় অভিজিতের সম্পূর্ণ ময়নাতদন্ত শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান।

এদিকে অভিজিৎ রায়ের হত্যার দায় আনসার বাংলা-৭ নামের একটি সংগঠন স্বীকার করেছে বলে দাবি করেছে পুলিশ। পুলিশের রমনা জোনের সহকারী কমিশনার এস এম শিবলী নোমানের ভাষ্য, আনসার বাংলা -৭ নামের একটি সংগঠন এই হামলার দায় স্বীকার করে টুইটারে একটি পোস্ট দিয়েছে।

ঘটনার পর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) অপরাধ শনাক্তকরণ দল ঘটনাস্থলের আলামত সংগ্রহ করে। শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থল থেকে রক্তমাখা দুটি চাপাতি ও কাঁধে ঝোলানো একটি ব্যাগ উদ্ধার করা হয়েছে। দুটি চাপাতির হাতল কাগজে মোড়ানো ছিল। আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব—এর পেছনে যারা জড়িত, তাদের খুঁজে বের করতে।’