পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে ৯ দফা দাবি আদায়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) আন্দোলনের চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। তবে অতীতের কিছু বাস্তবতা মাথায় রেখে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মাঠে নামছেন না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘আজকে লাখ লাখ ইলিয়াস কাঞ্চন রাস্তায়।’

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের বাসচাপায় কলেজপড়ুয়া দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। পরের দিন থেকে রাজধানীর সড়ক অবরোধ করে বেপোরোয়া বাস চালকের ফাঁসি, রাস্তায় ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল এবং লাইসেন্স ছাড়া চালকদের গাড়ি চালনা বন্ধসহ ৯ দফা দাবি আদায়ে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা।

১৯৯৩ সালের ২২ অক্টোবর সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন ইলিয়াস কাঞ্চনের স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চন। এরপর তিনি নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনে নামেন। গড়ে তোলেন সংগঠন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে জাগো নিউজের সঙ্গে কথা বলেন ইলিয়াস কাঞ্চন। তিনি বলেন, ‘টকশোসহ বিভিন্ন মাধ্যমে আমি এই শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পক্ষে কথা বলছি। কাজ করার ক্ষেত্রে প্রত্যেকের একটা নিজস্ব কৌশল আছে। সেই টেকনিকে কাজ করতে হয়। অতীতের কিছু ঘটনা মনে রেখে পদক্ষেপ নিতে হয়।’

তিনি বলেন, ‘আপনাকে মনে রাখতে হবে, আমাদের দেশে গণজাগরণ মঞ্চ হয়েছিল। লোকের অভাব হয়নি। কিন্তু সেটা কীভাবে ট্যাকেল হয়েছে আপনাদের মনে আছে। ইমরানের নামগন্ধও কিন্তু এখন নেই।’

‘কিছুদিন আগে প্রধানমন্ত্রী বললেন, কোটা যেহেতু ছেলেরা চায় না, তাই কোটা রাখব না। এরপর জানেন আপনি কী হয়েছে। এগুলো মাথায় নিয়েই কিন্তু কাজ করতে হবে।’

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘২৫ বছর ধরে কাজ করে যাচ্ছি। আমি যদি বাচ্চাদের সঙ্গে থাকি, তবে এখানে কিছু হলে টোটাল দোষটা কিন্তু আমার ওপর আসবে। আমি যদি মাঠে এদের পাশে থাকতাম তবে বলা হত গাড়ি ভাঙচুরের জন্য এই লোকটিই উসকে দিয়েছে।’

আগামীকাল শুক্রবার তার সংগঠনের পক্ষ থেকে মানববন্ধন করা হবে জানিয়ে কাঞ্চন বলেন, ‘আমি সেখানে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে কিছু কথা বলব। তাদের কী করা উচিত- তারা যাতে গণজাগরণ মঞ্চ কিংবা কোটা আন্দোলনের মতো কোনো ফাঁদে না পড়ে।’

‘শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে আমাদের সংগঠন একাত্মতা প্রকাশ করছে। তাদের সঙ্গে আছি। কিন্তু তারা যেন কারও ফাঁদে না পড়ে’- বলেন এক সময়ের দাপুটে নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন ধরে বলেছি, এক ইলিয়াস কাঞ্চনে হবে না, হাজার হাজার ইলিয়াস কাঞ্চন হতে হবে। আজকে লাখ লাখ ইলিয়াস কাঞ্চন রাস্তায়।’

‘তাদের যে স্লোগান, এটা তো আমারই কথা। আমি কি ড্রাইভিং লাইসেন্সের কথা বলিনি? আমি কি একদিন ফিটনেসের কথা বলিনি? আমি বলেছি, কেউ এগিয়ে আসেনি। আজ ছাত্ররা এসেছে এসব দাবি নিয়ে’- বলেন নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান।