মহাকাশ গবেষণায় মার্কিন প্রতিষ্ঠান নাসা আয়োজিত স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের বাংলাদেশ পর্বে সেরা হয়েছে ঢাকার আইইউবি কোয়ার্কস ও চট্টগ্রামের টি-স্কয়ার দল। প্রতিযোগিতায় রানার্স-আপ হয়েছে যান্ত্রিক ক্লিন ওয়াটার ও কম্বো কোডার দল।
বিজয়ী এই চার দলই নিউ ইয়র্কে অনুষ্ঠিত চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের আবেদন করতে পারবে।
প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ পর্বের প্রধান সমন্বয়ক আরিফুল হাসান অপু জানান, বিশ্বের একশটি পর্ব থেকে প্রায় চারশত দল মূল পর্বের জন্য আবেদন করতে পারবে। সেখান থেকে পাঁচটি দলকে চূড়ান্ত বিজয়ী হিসেবে বেছে নেওয়া হবে।

বাংলাদেশে এবারই প্রথম অনুষ্ঠিত হয়েছে এই হ্যাকাথন ‘ইন্টারন্যাশনাল স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ-২০১৫। যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা বিশ্বব্যাপী এই প্রতিযোগিতা আয়োজন করে থাকে।

দেশে এ প্রতিযোগিতার আয়োজক ছিল বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অফ সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)। সহযোগী হিসেবে ছিল বেসিস স্টুডেন্ট ফোরাম, আইবিপিসি, ক্লাউডক্যাম্প, ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ (আইইউবি) ও আইআইইউসি।

প্রতিযোগিতায় আর্থ, আউটার স্পেস, হিউম্যান, রোবোটিক্স শ্রেণিতে দেড় হাজারেরও বেশি প্রতিযোগী আবেদন করে। এরপর কয়েকটি ধাপে ঢাকার জন্য ৩৬টি ও চট্টগ্রামের জন্য ১৬টি দল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য প্রাথমিকভাবে নির্বাচন করা হয়।

শুক্রবার ঢাকার ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ (আইইউবি) ও চট্টগ্রামের ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটিতে (আইআইইউসি) প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত দলগুলো প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

৫ জন মেন্টর প্রতিযোগীর আইডিয়াগুলো উন্নয়নে সহায়তা করেন। শনিবার বিকালে ১২ জন বিচারক প্রতিযোগীদের আইডিয়া ও অ্যাপগুলো কয়েকটি ধাপে পর্যবেক্ষণ করেন।

উভয় স্থানেই বিচারকদের দেওয়া পয়েন্টের ভিত্তিতে প্রথম, দ্বিতীয় ও পিপলস চয়েজ শ্রেণিতে একটি দল নির্বাচন করা হয়।

প্রতিযোগিতায় প্রথম, দ্বিতীয় ও পিপলস চয়েস শ্রেণিতে বিজয়ীদের ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষা সচিব মো. নজরুল ইসলাম খান। বেসিসের নির্বাহী পরিচালক সামি আহমেদের পরিচালনায় এতে উপস্থিত ছিলেন নাসার ইন্টারন্যাশনাল স্পেস অ্যাপস প্রতিযোগিতার অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও সংগঠক আলী লিওয়েলিন, আইইউবি বোর্ড অব ট্রাস্ট্রির চেয়ারম্যান রাশেদ চৌধুরী, বেসিসের সহ-সভাপতি এম রাশিদুল হাসান, মহাসচিব উত্তম কুমার পাল, কোষাধ্যক্ষ শাহ ইমরাউল কায়ীশ, পরিচালক ও বেসিস স্টুডেন্টস ফোরামের আহ্বায়ক ও প্রতিযোগিতার প্রধান সমন্বয়ক আরিফুল হাসান অপু।