বৃটেনের প্রভাবশালী পত্রিকা দ্য ইন্ডিপেনডেন্টকে দেয়া এক সাক্ষাৎকের এ তথ্য জানিয়েছেন প্রিন্স ফারহান। জামাল খাশোগির আগে তিনিই সৌদি যুবরাজের টার্গেটে ছিলেন বলেও মন্তব্য করেন ফারহান। প্রিন্স খালেদ বিন ফারহান বর্তমানে জার্মানিতে স্বেচ্ছা-নির্বাসনে রয়েছেন।

ইন্ডিপেনডেন্টকে তিনি জানান, রাজপরিবারের এসব সদস্য আধুনিক সৌদি আরবের প্রতিষ্ঠাতা রাজা আবদুল আজিজের নাতি। গত সপ্তাহে সৌদি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এক বৈঠকে প্রিন্সরা সাংবাদিক খাশোগি নিখোঁজের সমালোচনা করেছিলেন। এরপরই প্রিন্সদেরকে আটক করা হয় এবং তাদেরকে কোথায় রাখা হয়েছে তা জানা যায়নি।

প্রিন্স ফারহান বলেন, ঠিক পাঁচদিন আগে কয়েকজন প্রিন্স সালমানের সঙ্গে দেখা করতে যান এবং তারা বলেন যে, তারা আলে সৌদি পরিবারের ভবিষ্যত নিয়ে ভীত। এসময় তারা খাশোগির ঘটনা উল্লেখ করেন। কিন্তু তাদের সবাইকে জেলে পাঠানো হয়।

ফারহান বলেন, ফারহান ও তার পরিবারকে পূর্ণ নিরাপত্তা দেয়ার অঙ্গীকারও করেছিল সৌদি কন্স্যুলেট। আমি জানতাম সৌদি কন্স্যুলেটে গেলে কী হতো।